গার্মেন্টস শিল্পে গ্লোবাল চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা: এক তরুণের ভাবনা

SHARE

ওয়ালিদুর রহমান: আমাকে যদি কেউ প্রশ্ন করেন, স্বাধীনতা পরবর্তি বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় চমক কিংবা মিরাকল কী ছিল? আমি কয়েকটা নাম বলব: যুদ্ধাপরাধীদের বিচার, ক্রিকেটের মাধ্যমে বাংলাদেশের বিশ্ব পরিচিতি, শাহবাগ আন্দোলন নামক একটি বিরল শহুরে মধ্যবিত্ত গণজোয়ার, বাংলাদেশের একজন মানুষের নোবেল জয়, বাংলাদেশী হিসেবে কারো এভারেষ্ট জয়, এককালের তলাহীন ঝুড়ির অধুনা ৪ লক্ষ কোটি টাকার বার্ষিক বাজেট দেবার দুঃসাহস, পদ্মা সেতুর মতো একটি অত্যন্ত দুঃসাহসিক চ্যালেঞ্জ দেবার মতো দাপট।

আরেকটা মিরাকল আছে-গার্মেন্টস নামক একটি বিষ্ময়। কী, চোখ কুঁচকে ফেললেন? সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললেন লেখাটা আর পড়ে সময় নষ্ট করবেন না? যদি তা করেন তবে আরেকটু কষ্ট করে পড়ুন।

হ্যা, গার্মেন্টস শিল্প বাংলাদেশের বিগত চার দশক ধরে সর্ববৃহৎ বিষ্ময় বলে আমি বিশ্বাস করি। যেহেতু গার্মেন্টসের গুণকীর্তন আজকে আমার মুল উদ্দেশ্য নয় তাই আমি লেখা সংক্ষিপ্ত করতে এর সপক্ষে মাত্র ৫ টি যুক্তি দেব:-
১.যেই প্রায় ৫০ লক্ষ (ডাইরেক্ট) কর্মী এখানে কাজ করেন তারা গার্মেন্টস না থাকলে কোথায় কাজ পেতে পারতেন? ভাবুনতো দেশে এখন সরাসরি বেকার ২৬ লক্ষ। এই ৫০ লক্ষ তার সাথে যোগ হয়ে এটি ৭৬ লাখ হত।
২.পরোক্ষভাবে আরো প্রায় ১ কোটি মানুষ গার্মেন্টস রিলেটেড ব্যাকওয়ার্ড ও ফরোয়ার্ড লিঙ্কেজে কাজ করেন। তাদের ও ডিরেক্ট কর্মীদের জিডিপিতে মোট আর্থিক অবদান কত?
৩.এর মধ্যে যে ৮০% মেয়ে শ্রমিক আছেন, গার্মেন্টস না থাকলে তাদের আজকের অবস্থান কী থাকত?
৪.বাংলাদেশের মোট রপ্তানী আয়ের প্রায় ৮২ ভাগ (২৮ বিলিয়ন ডলার) দখল করেছে গার্মেন্টস শিল্প। এইটা না থাকলে আমরা ৪ লক্ষ কোটি টাকার বাজেট দেবার সাহস কোথা হতে পেতাম?
৫.ক্রীকেট ছাড়া আরো যে জিনিসটি বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক পরিচীতি এনে দিয়েছে সেটা হল গার্মেন্টসের “মেড ইন বাংলাদেশ” ব্রান্ডিং।

আমার আজকের লেখার মূল উপজীব্য অন্য। বাংলাদেশের এই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ফেনোমেননটির ভবিষ্যত, অতিশীঘ্রই যেসব ভয়াবহ চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে যাচ্ছে এই খাতটি, তার একটি নন-একাডেমিক স্ট্যাডি আমার উদ্দেশ্য। খুব সাদাচোখে এই খাতের একজন সাধারন কর্মী হিসেবে নির্মোহ কিন্তু বাস্তববাদী বিশ্লেষন করাই আমার লেখার উদ্দেশ্য। অনেকে বলতে পারেন চ্যালেঞ্জ তো থাকবেই। হ্যা থাকে তবে যদি কোনো দেশের রপ্তানি আয়ের ৮২% ই দখল করে থাকে একটিমাত্র খাত আর সে খাতে প্রায় ৫০ লক্ষ মানুষ (প্রত্যক্ষভাবে) রুজি রুটির জন্য নিয়োজিত থাকে তাহলে সেই চ্যালেঞ্জের গুরুত্ব আর দশটা বিষয়ের চেয়ে অনেক বেশি চিন্তার বিষয়। যদি লেখাটি আমাদের বর্তমান, ভবিষ্যত উদ্যোক্তাবৃন্দ কিংবা উদ্যোক্তা হবার স্বপ্ন দেখছেন এমন মানুষেরা কিংবা যারা এই সেক্টরের নীতি নির্ধারনী পর্যায়ের কর্মী-তারা পড়েন এবং আমাদের রক্ত জল করা এই শিল্পটিকে বাঁচাতে, টিকিয়ে রাখতে, এগিয়ে নিতে এই লেখাটি বিন্দুমাত্র কাজে আসে তবে আমার পরিশ্রম স্বার্থক হবে। তবে অনেকে বলতে পারেন, আপনি উদ্যোক্তা বা নীতিনির্ধারকদের এত জ্ঞান যদি দিতে পারেন তবে নিজে কেন উদ্যোক্তা হন না? ভাই, উদ্যোক্তা হবার জন্য যতগুলো ক্রাইটেরিয়া ফিল আপ করতে হয় তার মধ্যে এই জ্ঞানটুুকু শুধু যথেষ্ট নয়। আরো অনেকগুলো বিষয় থাকতে হয়ই। তার মধ্যে অন্যতম ভাইটাল বিষয় হল “ডিটারমিনেশন-উদ্যোক্তা হবার” যেটা আমার নেই। তাই উদ্যোক্তা হওয়া আর হয়ে ওঠে না।

আমি আমার দীর্ঘ ১২ বছরের চোখে দেখা গার্মেন্টসের নানান চড়াই উৎড়াই আর গার্মেন্টসের সাথে ওৎপ্রোতভাবে জড়িয়ে থাকার অভিজ্ঞতার আলোকে বর্তমান বিশ্বের ও আমাদের দেশের সার্বিক প্রেক্ষাপটে আমাদের এই প্রাণভোমরা শিল্পটির সামনে শীঘ্রই স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদী যেসব চ্যালেঞ্জ আসছে তার একটি সংক্ষিপ্ত বিবরন দিতে চাই:
১.ব্রেক ইভেন অব ইন্ডাস্ট্রি: আমাদের স্বাধীনতা পরবর্তি মিলিয়ন ডলারের বাজেট আজ অলরেডি ৪ লক্ষ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। একবার যেহেতু ৪ লক্ষ হয়েছে সেটা ইকোনোমির নিজস্ব ধর্ম অনুযায়ী আর ৩ লক্ষ হবার কোনো সুযোগ নেই। বরং এটা ক্রমাগত বড় হতেই থাকবে। এই ভলিউমের একটি ইকোনোমি বড় হতে হতে একসময় তার প্রধান খাতগুলো ব্রেক ইভেনে চলে যায় অর্থাৎ ওই দেশের অর্থনীতির প্রধান খাতগুলো তাদের একক অবদানের দিক দিয়ে ব্রেক ইভেন পয়েন্টে চলে যায়। তারপর আর ওই খাত নির্ভর থেকে ইকোনোমি চলতে পারে না। ইকোনোমিকে তার গতিধারা বজায় রাখতে আরো বেশি সফিসটিকেটেড খাত, সুপার ভ্যালুর খাতে মাইগ্রেট করতেই হয়। তার মানে দাড়াল, বাংলাদেশের অর্থনীতিকে নিজের টিকে/এগিয়ে যাবার স্বার্থেই একটা পর্যায়ে তার আজকের প্রধান খাতকে পেছনে ফেলে নতুন নতুন অধিকতর লাগসই খাত খুঁজে নিতে হবে। তার মানে দাড়াল গার্মেন্টস শিল্পকে ক্রমাগত সংকুচিত বা আরো অপ্রধান খাতে পরিনত হবার কিংবা ধীরে ধীরে নতুন লাগসই খাতের কাছে পিছিয়ে পড়তে হবে। বিশ্বাস হচ্ছে না? জাপান, ইউএসএ, কোরিয়াকে দেখুন। তারাও তো একসময় গার্মেন্টস করত। আজ তারা সেখানে আছে কি যেখানে তারা আরো ৪০ বছর আগে ছিল? (এরপরও বিশ্বাস না হলে ১৪ জুনের প্রথম আলোতে জনাব বদিউল আলম মজুমদারের এই কলামটি পড়ে দেখতে পারেন-http://epaper.prothom-alo.com/view/dhaka/2017-06-14/11)
২.ইউরোপের জনসংখ্যা হ্রাস: শুনলে হাস্যকর মনে হতে পারে তবে ইউরোপ (যেটি আমাদের গার্মেন্টস রপ্তানীর প্রধান হাব) সেখানকার জনসংখ্যার ক্রমহ্রাস আমাদের জন্য একটি থ্রেট। থ্রেটটি খুব ধীর হলেও স্টেডি। মানুষ কমলে কনজাম্পশন কমবে। তাতে আমাদের অর্ডার ফ্লো কমতে বাধ্য। অনেকে বলবেন, মানুষ কমছে তাতে কী, মাইগ্র্যান্টরাতো গিয়ে সে গ্যাপ পূরণ করছে তো। স্যরি, মাইগ্রান্টরা আমাদের রপ্তানী করা ২৫ ডলারের শার্ট-প্যান্ট কেনার ক্ষমতা খুব কম রাখে।
৩.মজুরীর আপেক্ষিক বৃদ্ধি: আমাদের গার্মেন্টস খাতের বিশ্ববাজারে প্রতিযোগীতা সক্ষমতার একটি অন্যতম প্রধান পজেটিভ চলক হল আমাদের প্রতিযোগী দেশগুলোর চেয়ে তুলনামুলক আপেক্ষিক কম শ্রম মজুরী। খুব ভাল করে খেয়াল করুন। আমি বলছি না “কম মজুরী” । আমি বলছি “তুলনামুলক আপেক্ষিক কম মজুরী”। এর বাইরে আরো কয়েকটি কমপারেটিভ বিজনেস ড্রাইভার আছে আমাদের যা অন্য কখনো বলব। তো, এই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ চলকটি খুব বেশিদিন আর অন্যান্য প্রতিযোগীদের চেয়ে পিছিয়ে থেকে আমাদের কমপারেটিভ কম্পিটিটিভনেস বাড়াবে-সেটা আর জোর গলায় বলা যাচ্ছে না। মজুরী বাড়তে বাড়েতে একটা ব্রেক ইভেনের বাইরে চলে গেলে আমাদের জন্য কম্পিটিশনটা ওপেন হয়ে যাবে। এটিও বাংলাদেশের জন্য বিশাল একটি চ্যালেঞ্জ হতে যাচেছ। ন্যুনতম মজুরী আরো বাড়ানো উচিৎ কিনা-সেটি একটি ডিফারেন্ট ইস্যূ। এখানে আমি শুধু মজুরী বৃদ্ধির শুধু নির্দিষ্ট একটি ইমপ্যাক্ট বোঝানোর চেষ্টা করছি।
৪.একর্ড ও এলায়েন্সের জন্ম বাংলাদেশের গার্মেন্টস খাতের জন্য অনেক ভাল কিছুর জন্ম দিলেও তা একই সাথে আবার অনেকগুলো অভিশাপেরও দরজা খুলে দিয়েছে। এটা মনে করার কোনো কারন নেই, এই দুটি বেনিয়া জোট আমাদের জন্য বিধাতার দূত হয়ে এসেছে। তাদের নীল দংশনে কিভাবে গার্মেন্টস খাত ধুঁকছে তার বিস্তারিত বর্ণনা এখানে দিলাম না। এই দুটি জোটের সরাসরি ও পরোক্ষ অভিশাপে ঠিক কী কী বিপদ ঘনাচ্ছে তার বিবরন দিতে আরেকটি গল্প লিখতে হবে। শুধু একটা পরিসংখ্যান বলি, বাকিটা আপনি বুঝে নিন। একর্ড ও এলায়েন্সের ছোবলে প্রায় ২৫০ টি চালু কারখানা বন্ধ হয়েছে। তাদের প্রেসক্রিপশনে বাংলাদেশের যতগুলো কারখানা তাদের শ্রমপরিবেশ সংশোধনের তালিকায় আছে তাদের পুরো কাজ বাস্তবায়নে খরচ করতে হবে প্রায় ১০-১৫ হাজার কোটি টাকা। এই টাকার যোগান দেয়া আর তার রিটার্ন পাওয়ার চ্যালেঞ্জ আপনি না মানুন, বাংলাদেশের গার্মেন্টসের সাথে জড়িত এমন নীতিনির্ধারকরা হাড়ে হাড়ে জানেন।
৫.অপরিকল্পিত, অনিয়ন্ত্রিত, দূরদর্শীতাহীন ও কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণ ব্যাতিত গামেন্টস শিল্প কারখানার সংখ্যাবৃদ্ধি বা বিদ্যমান ইউনিটগুলোর উৎপাদন সক্ষমতা বৃদ্ধি (উৎপাদনশীলতার সাথে মিশিয়ে ফেলবেন না) এদেশের গার্মেন্টস শিল্পের জন্য অচীরেই তীব্র প্রতিযোগীতা সৃষ্টি করতে যাচ্ছে দেশের ভিতরেই। যার সুবিধা নেবে বায়াররা, বাংলাদেশ নয়। একতো দেশে অর্ডারের পরিমান কমছে। পাশাপাশি সেই অর্ডারও ভাগ হবে, কারন অর্ডার চাই-এমন ক্ষুধার্ত পেট বাড়ছে।
৬.বায়ারদের চাপে প্রতিনিয়ত পোশাকের গ্রস মূল্য কমতে থাকা আমাদের জন্য ভয়াবহতম থ্রেট। যারা বলেন গার্মেন্টস ওনাররা প্রচন্ড রকম প্রোফিট করেন শুধু সেসব অন্ধদের জ্ঞাতার্থে বলি, আমাদের বার্ষিক টার্নওভার যদি ১০০ টাকা হয় তাহলে তার ৬৫ টাকাই কাঁচামালের দাম বাবদ বিদেশী সাপ্লায়ারকে দিয়ে দিতে হয়। বাকি ৩৫ টাকা হতে যাবতীয় খরচ (বেতন, বোনাস, ভাঙচুর ব্যায়, ঘুষ, কন্সট্রাকশন, অপচয় এমনকি টয়লেট পেপারের দাম ইত্যাদি) মেটাতে হয়। গার্মেন্টস একমাত্র ব্যবসা যেখানে প্রতিটি SPI অর্থাৎ প্রতিটি স্টিচ বা সুঁইয়ের ফোড় হিসাব করে পয়সা আয় করতে হয়।
৭.যে ভলিউমে ও গতিতে আমাদের গার্মেন্টস ইন্ডাস্ট্রি কলেবরে বেড়েছে তার সাথে তাল রেখে বাড়েনি ব্যাকওয়ার্ড ও ফরোয়ার্ড লিংকেজ। ফলে হাইপোথাইরয়ডিজমের রোগীর মতো আমাদের ব্যাসিক কাট টু প্যাক শিল্প টিপিক্যালী যাকে দেশের মানুষ ”গার্মেন্টস” নামে চেনে তার মাথা হচ্ছে বিশাল কিন্তু হাত পা অবয়ব বড় হয়নি। পরিণতি তো বুঝতেই পারছেন। সামাল দিতে গিয়ে লাভের গুড় পিপড়েকে দিতে হচ্ছে মানে টোটাল টার্নওভারের একটা বড় অংশ বিদেশী র ম্যাটেরিয়াল সাপ্লাইয়ার ও বিদেশী কনসালট্যান্ট/এক্সপার্টকে দিয়ে দিতে হচ্ছে। এই বিদেশ নির্ভরতা আমাদের প্রতিযোগীতার সক্ষমতার আবার এক বড় প্রতিবন্ধক যেটার নাম লীড টাইম। আমাদের লীড টাইম চায়নার দ্বিগুন হলে আমরা কী করে চায়নার সাথে টিকব?
৮.শুনতে স্বার্থপর মনে হতে পারে তবু বলছি। দেশের শিক্ষার হার যত বাড়বে তত গার্মেন্টস খাত রিলেটিভ নেগেটিভ ইমপ্যাক্ট ফ্যাক্টরের শিকার হবে। কেন? এই খাতের মূল প্রাণশক্তি কিন্তু এখানকার অশিক্ষিত লেবার শ্রেণী যারা মুলত প্রোডাকশন করে। শিক্ষার হার ও সুযোগ যত বাড়বে তত এই খাতে শ্রমিক সরবরাহ কমবে। তার উপর সরকার এখন মেয়েদের (যারা গার্মেন্টসের প্রধানতম ম্যানপাওয়ার) তাদের ডিগ্রি পর্যন্ত স্টাইপেন্ড/সাবসিডি/খরচ দিচ্ছে বা দিতে যাচেছ। এতে তাদের গার্মেন্টসে আসা কমবে। শিক্ষিত মানুষ নিশ্চই কাতারে কাতারে গার্মেন্টস শ্রমিক হতে চাইবে না। এই মুহুর্তে এমনিতেই এখানে ঘাটতি আছে ১০-১৫ লাখ শ্রমিকের। সেটা যদি আরো বাড়তে থাকে (শিক্ষার হার বাড়ায় আর নতুন কারখানা বাড়ায়) তবে আমাদের প্রোডাকশন ব্রেক ইভেনের ধাক্কায় পড়বে।
৯. অদ্ভুৎ মনে হলেও একটা সত্যি কথা বলি। দেশের ক্রমাগত অর্থনৈতিক অগ্রগতিও গার্মেন্টসের জন্য একধরনের চ্যালেঞ্জ তৈরী করছে। ভাবুনতো, আপনি যত ধনী হবেন, গামেন্টস শিল্প হতে ততই কি আপনি আগ্রহ হারিয়ে আরো তুলনামুলক আকর্ষনীয় বা আপাতঃ প্রেস্টিজিয়াস পেশায় যেতে চাইবেন না? এতে করে গার্মেন্টস তার কোয়ালিটি ম্যানপাওয়ার দিন দিন আরো হারাবে। মানতে পারলেন নাতো? ধরেন আমাদের অর্থনীতি জাপানের মতো বড় হল। তো বাঙালী একজন নাগরিক যার পার হেড ইনকাম গড়ে ১৬০০ ডলার হতে বেড়ে ১৬,০০০ ডলার হয়ে গেল তিনি কি আজকের মতো এত সহজে গার্মেন্টসে (আই মিন কারখানা শিল্পে) কাজ করতে চাইবেন? আরো উদাহরন দেই। মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো কেন তৃতীয় বিশ্ব হতে শ্রমিক নেয়? একটু দু’য়ে দু’য়ে চার মিলান। আপনারা জানেন কিনা জানি না। গার্মেন্টসের ৫০-৫৫ লাখ শ্রমিকের প্রায় ৮০ ভাগ নারী অথচ এখানকার নিয়ন্ত্রক স্ট্যাফদের প্রায় ৯৫ ভাগ পুরুষ। কেন জানেন? ইনিশিয়ালী মেয়েরা এই পেশায় এলেও তারা বেশ কয়েক বছর চাকরী করে নিজেদের দক্ষতার বেস্ট সময়টাতে চাকরী ছেড়ে সংসারী হয়ে যায় নানান বাস্তবতায়। ফলে বেস্ট এফিশিয়েন্ট ম্যানপাওয়ারের অপটিমাম সার্ভিস বঞ্চিত হয় সেক্টর। ইকোনোমিক গ্রোথ এই খাতে ম্যানপাওয়ার সাপ্লাইয়ের বিদ্যমান ঘাটতিকে আরো বাড়াবে।
১০.ইমেজ সংকট: আপনি হয়তো মানবেন না। তবু বলছি, এই দেশে তথাকথিত জ্ঞানী, বিশেষজ্ঞ আর ক্রেজি দেশপ্রেমিক মানবতাবাদীদের সংখ্যা ও তাদের নির্বোধ প্রেশারগ্রূপ এফেক্ট গার্মেন্টস সেক্টরের জন্য অশনী সংকেত। নানান চেষ্টা স্বত্বেও এই গ্রূপটার কারনে গার্মেন্টস বিরাট ইমেজ সংকটে আছে যা আমাদের প্রতিযোগীতা সক্ষমতাকে আরো কমাবে। এরা ইকোনমি বা ইন্ডাস্ট্রির কিছু বুঝুক বা না বুঝুক, অষ্টপ্রহর গার্মেন্টস শিল্পের যতরকম নেগেটিভ নিউজ, ডিসকাশন করা যায় করে যাবে। এতে করে কেউ যদি উপকৃত হয় সেটা হচ্ছে আমাদের প্রতিযোগী দেশসমূহ-ভিয়েতনাম, ভারত, কম্বোডিয়া, চায়না ও অন্যান্যরা। এক হলি আর্টিজেন কান্ডে পরবর্তি কয়েকমাসে কত পরিমান অর্ডার শিফটিং হয়েছে সেটা আমরা জানি।
১১.সেই আশির দশক হতে শুরু করে আজকে গার্মেন্টসের ভলিউম কত হয়েছে নিশ্চই জানেন? বিজিএমইএ লক্ষ্য নির্ধারন করেছে ২০২১ সাল নাগাদ এই খাতের রপ্তানী আয় ২৮ বিলিয়ন হতে ৫০ বিলিয়নে নিয়ে যাবে। নিশ্চই তা হবে। তবে বর্তমানের প্রেক্ষিতে একটু মিলিয়ে নিই। গার্মেন্টস সেক্টরের তিনটি প্রধানতম চ্যালেঞ্জ যদি আমি বলতে চাই তবে তার একটা অবশ্যই হবে মানবসম্পদের ঘাটতি। শ্রমিকের তো ঘাটতি আছেই। তার সাথে আরও আছে যোগ্য, দক্ষ, স্মার্ট, ভিশনারী, কারিগরি, ম্যানেজমেন্ট কর্মীর ঘাটতি। ভাল করে শুনবেন-ঘাটতি আছে বলেছি, টোটাল অনুপস্থিতি আছে বলিনি। এই খাতকে নেতৃত্ব দিয়ে তাকে ৫০ বিলিয়নের বন্দরে পৌছাতে যে পরিমান ও যেই টোটাল ক্যালিবারের হিউম্যান রিসোর্স দরকার তা আমাদের নেই আর তা তৈরীর কোনো নিশ্চিত ব্যবস্থাও আমরা এখনো করতে পারিনি। তো কারা নেতৃত্ব দেবে আমাদের ম্যানডেটরি ম্যাসিভ গ্রোথ রিকয়ারমেন্টকে?
১২.যদি আপনি মৌলিক ইকোনমি বুঝে থাকেন তাহলে নিশ্চই জানবেন, প্রতিটি অার্থিক খাত বা চলককে টিকে থাকতে হলে নির্দিষ্ট ও ধারাবাহিক মার্জিনাল গ্রোথ রেট ধরে এগোতে হয়। আমাদের বিজনেস ডাটা বলছে, বিগত ৫ বছর ধরে আমাদের এই খাতের মার্জিনাল গ্রোথ রেট হ্রাস পাচ্ছে। ৫ বছর আগে যা ছিল 6-7% সেটা ২০১৭ তে মাইনাস রেটে যা ভয়ঙ্কর ভীতিপ্রদ।
১৩.এবার যেটির কথা বলব সেটি বলার পর বহু প্রগতিবাদী ও সমাজসেবক আমাকে গালি দিতে নেমে পড়বেন। তবু বলছি। ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং ইউএসএ যারা আমাদের গার্মেন্টস পণ্যের সিংহভাগের ক্রেতা তারা ক্রমাগতভাবে গার্মেন্টসে ট্রেড ইউনিয়ন প্রতিষ্ঠার জন্য চাপ তৈরী করছে। ট্রেড ইউনিয়ন ইস্যুতে (সাথে আরো কিছু ফালতু ইস্যুতে) ইউএসএ ইতিমধ্যেই বাংলাদেশের জিএসপি সুবিধা স্থগিত করে রেখেছে বছর তিনেক। ইইউও সেই রাস্তায় হাটছে। জিএসপি না থাকায় আমাদের প্রতিযোগীতা সক্ষমতা কমে যাচ্ছে। আবার ওটা পেতে গেলে ইউনিয়ন দিতে হবে। বাংলাদেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটে ট্রেড ইউনিয়ন একদমই আশির্বাদ বয়ে আনবে না। বরং (বিশ্বাস করুন) ট্রেড ইউনিয়ন বাংলাদেশের গার্মেন্টস শিল্পের কফিনে শেষ পেরেক ঠোকা হবে। ইউনিয়ন করার মতো ম্যাচিওরড কর্মীবাহিনী আমাদের তৈরী হয়নি। আগে শিল্পটাকে বাঁচান। তারপর দেখা যাবে এর ফাইন টিউনিং।
আমি ১৩টি বললেও আসলে আরো অসংখ্য চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে আমাদের জন্য। এতক্ষণের আলোচনার প্রেক্ষিতে বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠিত গার্মেন্টস উদ্যোক্তাগণ, উদীয়মান উদ্যোক্তাগন, সিনিয়র পলিসি মেকারগণ, উচ্চ পদস্থ কর্মীবৃন্দ এবং হবু উদ্যোক্তাগণ বলতে পারেন, এগুলো অতিশয় কল্পনা বা বাস্তবতাবিবর্জিত। অথবা ভাবতে পারেন এইসব থ্রেট ও চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করেই আমরা বিগত ৪০ বছর টিকে আছি। হ্যা আছি, আরো কিছুদিন থাকবও (আমি কামনা করি যেকোনো উপায়ে হোক আমরা আরো শতবছর টিকে থাকবই) তবে অতীতের যেকোনো সময়ে এইসব চ্যালেঞ্জের গুরুত্ব ও চাপ, পোষ্ট রানাপ্লাজা-শারমিন ইস্যু আর একর্ড এলায়েন্স যুগের মতো ছিল না। উপরের প্রতিটি চ্যালেঞ্জ অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে মোকাবেলা করা আরো প্রচন্ড চ্যালেঞ্জিং হয়ে যাবে।
এখন প্রশ্ন হল, আমরা এটা মোকাবেলা করব কিভাবে? কিভাবে করব সেটা বলার আগে এটা আগে স্বীকার ও বিশ্বাস করতে হবে যে, থ্রেট ও চ্যালেঞ্জটি সত্যিই আসছে এবং তার কামড় খুব প্রচন্ড হবে। তাহলেই আমরা সেটিকে সত্যিকার ও সিরিয়াসলি মোকাবেলা করতে পারব, অন্তত চেষ্টা করতে পারব। আমি যেহেতু বড় বড় থিংক ট্যাঙ্ক সংগঠনের একাডেমিশিয়ান বা প্রথাগত গবেষক নই, তাই সমাধানের উপায়গুলোও হয়তো প্রথাগত ও গোছালো বলতে পারবনা। খুব সংক্ষেপে বলছি:-
বাংলাদেশের গার্মেন্টস খাতকে তৈরী হতে হবে। সবদিক হতে। বিশ্বের বাজারে যত শক্ত প্রতিযোগী আছে তাদের সাথে আমাদের প্রতিযোগীতার সক্ষমতা বাড়াতে হবে সবক্ষেত্রে। আমাদের যতটুকু আছে তার থেকে অপটিমাম ব্যবহার করতে হবে। প্রচুর এনার্জি, মানি, টাইম ও অপর্চুনিটি ওয়েস্টেজ হয় আমাদের। সেটাকে ভার্চুয়ালী শুন্যের কোঠায় আনার লক্ষ্য নির্ধারন করতে হবে। যেকোনো প্রকারেই হোক, ম্যানপাওয়ার সাপ্লাইয়ের ঘাটতি পুরন করতেই হবে-লেবার ও ম্যানেজমেন্ট কর্মী-দুটোই। গার্মেন্টস সেক্টর লেবার ইনটেনসিভ খাত। এখানকার উন্নতির যেকোনো উদ্যোগের মুলেই হল ম্যানপাওয়ারের সক্ষমতা। একটি গার্মেন্টস প্রতিষ্ঠান এক্ষেত্রে এককভাবে কী করতে পারবে? হ্যা, বিপদ তো তার একারও আছে তাই তার এককভাবেও অনেক কিছু করবার আছে। তাকে প্রথমেই বিপদ আসছে-সেটা রিয়েলাইজ করতে হবে, বিপদের ধরন ও কারন বুঝতে হবে, নিজের ইন্টেলেকচুয়াল ও টেকনিক্যাল-উভয় ধরনের ম্যানপাওয়ারকে সিংক্রোনাইজড ও ডেটোনেট করতে হবে সব প্রিপারেশনসহ (বিপদ আসার অনেক আগে)। প্রোএকটিভ ব্যবস্থা নিতে হবে, ওয়েস্টেজ আটকাতে হবে, ব্রান্ডিং করাতে হবে নিজের। আমি খুব সংক্ষেপে এইচআর প্রফেশনাল হিসেবে বলব, আপনি অত্যন্ত স্মার্ট, হাইলি কোয়ালিফাইড এবং প্রফেশনাল কর্মী হায়ার করুন। তারাই যা করার করবে অটোমেটিক্যালি। এ্যামেচার আর হাতুড়েদের দিয়ে গার্মেন্টস আর চলবে না। মনে রাখতে হবে, সারভাইভাল ফর দি ফিটেষ্ট।

তবে আমি একটি নিজস্ব বিশ্বাসকে (অবৈজ্ঞানিক শোনাবে হয়তো) সবশেষে বলব এই আসন্ন দুর্যোগ হতে বাংলাদেশের গার্মেন্টস খাতের যুদ্ধজয়ের সর্ববৃহত হাতিয়ার। সেটা হল, এক;গার্মেন্টস সেক্টর ও এর যোদ্ধাদের লড়াকু স্বকীয়তা, অতীত সাফল্য। দুই ও সবচেয়ে ভাইটাল; বাঙালী কোনদিন কারো কাছে নত হয়নি। বাংলাদেশকে হারানো গেছে, পরাজিত করা যায়নি-এটাই আমাদের সবচেয়ে বড় মন্ত্র।

ওয়ালিদুর রহমান: ডিজিএম, হিউম্যান ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট, অনন্ত গ্রুপ।